অভিযান বেগবান ও শক্তিশালী করা হবে


র‌্যাবের অভিযান সম্পর্কে বেনজীর

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ১২, ২০১৮ , ১১:০০ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ১২, ২০১৮, ১১:০০ অপরাহ্ণ

স্কোয়াডন লিডার শাফায়েত জামিল ফাহিম পেটে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। তার অবস্থা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এই মুহূর্তে তাকে প্রায় ছয় ঘণ্টা অপারেশন করা হয়েছে চট্টগ্রামের সিএমএইচে। মেজর মেহেদী হাসান উরুতে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। অন্য দুজনের একজন ল্যান্স করপোরাল শহিদুল ইসলাম এবং একজন সৈনিক আরিফুল ইসলামসহ মোট চারজন এ ঘটনায় আহত হয়েছে।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যদের সঙ্গে মাদক ব্যবসায়ীদের গোলাগুলির বর্ণানা এভাবে দিচ্ছিলেন বাহিনীর মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ।

আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকার সিএমএইচ-এ আহতদের দেখতে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বেনজীর আহমেদ।

র‌্যাবের ডিজি বলেন, তারা চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানার মুরাদপুর বিবিরহাট রেলগেট এলাকায় চেকপোস্ট করছিল। তখন আকষ্মিকভাবে তারা দেখেন, একটা নীল গাড়ি দ্রুত বেগে সামনে এগিয়ে আসছে। তারা গাড়িটা থামানোর সিগনাল দিলে গাড়িটি থামায়। গাড়ি থেকে একজন ভদ্রলোক নেমেই এলোপাথারি গুলি ছুড়তে থাকেন। এতে ঘটনাস্থলে দুজন গুলিবিদ্ধ হন। সঙ্গে থাকা অন্যরা পাল্টা গুলি বর্ষণ করলে ওই ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়। মাটিতে পড়ে গিয়েও সে তিনটি গুলি করে, যার দুইটি গুলিতে আরও দুইজন আহত হন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, পরে ওই গাড়িটি সার্চ করে ১২ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। একটি বিদেশি পিস্তল, চারটি মোবাইল, একটা ইনট্যাক ম্যাগাজিনের গুলি এবং কিছু ফায়ার ফ্যাস্টিস পাওয়া গেছে। যে ব্যক্তিটি গুলি করেছে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। আমরা ধারণা করছি, এই গাড়িতে আরও যাত্রী ছিল। তারা গোলাগুলির ফাঁকে পালিয়ে গেছে। তাদের ধরতে অভিযান চলছে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, আমরা গুলিবিদ্ধ তিনজনকে ঢাকার সিএমএইচে নিয়ে এসেছি। আর ফাহিম খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছেন। তাকে অপারেশন করা হয়েছে। তার অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। আগামিকাল প্রয়োজন মনে করলে তাকে হেলিকপ্টরে ঢাকায় নিয়ে আসব।

র‌্যাবের ডিজি বলেন, গত পাঁচ মাস ধরে মাদকবিরোধী অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। এই প্রথম বড় দুর্ঘটনার মুখোমুখি হয়েছে র‌্যাব। দেশকে মাদকমুক্ত করতে র‌্যাব প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা মোটেই ভীত নই। আমরা আমাদের কার্যাক্রম চালিয়ে যাব। আহতরা যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে মাদকের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে সে যুদ্ধে অংশ নিতে পারে, এ জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই।

র‌্যাব জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে নেভী ব্লু রংয়ের প্রাইভেটকার র‌্যাবের চেকপোস্টের দিকে আসতে থাকলে র‌্যাব সদস্যরা প্রাইভেটকারটিকে থামানোর সংকেত দেন। এ সময় এক সন্ত্রাসী গাড়িটি থেকে বের হয়েই র‌্যাবের চেকপোস্ট লক্ষ্য করে অতর্কিত ও এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ শুরু করে। আত্মরক্ষা ও সরকারি জানমাল রক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি বর্ষণ করে। গুলি বিনিময়ের একপর্যায়ে অস্ত্রধারীরা প্রাইভেটকারটি রেখে গুলি ছুড়তে ছুড়তে পালানোর চেষ্টা করে। এর কিছুক্ষণ পর ঘটনাস্থলে একজনের গুলিবিদ্ধ দেহ পাওয়া যায়।

পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে জানা যায়, নিহত ব্যক্তি অসিম রায় বাবু ওরফে ডাইল বাবু (৪০)। তার বাড়ি চট্টগ্রামের বাশখালী থানার পূর্ব চাম্বল গ্রামে। তার নামে চট্টগ্রাম কোতয়ালী থানায় দুটি মাদক মামলাসহ মোট তিনটি মামলা রয়েছে।

র‌্যাব মহাপরিচালক জানান, মাদক বিরোধী অভিযান আরও বেগবান ও শক্তিশালী করা হবে। গত ৫ মাসের অভিযানে সাড়ে ৩০০ কোটি টাকার ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদক জব্দ করা হয়েছে। প্রায় ১৭ হাজার মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা করা হয়েছে। প্রকাশ্য মাদক কেনাবেচা এখন বন্ধ হয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীদের আমরা শক্তভাবে দমন করার ফলে তারা রুট ও কৌশল পরিবর্তন করেছে। খুচরা বিক্রেতারও এর বাইরে নয়। যারা মাদক গ্রহণ করেন তাদের অনেকে মাদক ছেড়ে দিয়েছেন। অনেকে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। কেউ রিহ্যাবে ভর্তি হয়েছেন বা হচ্ছেন।

র‌্যাবের ডিজি বলেন, ১০০ টাকার ইয়াবা এখন ৬০০-৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সরকারের নেতৃত্বে আমরা যে অভিযান পরিচালনা করছি তার সুস্পষ্ট প্রভাব ইতোমধ্যে পড়েছে। যতদিন আমরা প্রয়োজন মনে করি ততদিন মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *