অ্যান্ড্রয়েডে অটোমেটিক ডাটা ব্যাকআপ এবং sync করার ৩টি সেরা অ্যাপস! | Techtunes


আমাদের সবাইকেই স্মার্ট ফোনের গুরুত্বপূর্ণ ডাটাগুলোর ব্যাকআপ রাখতে হয়। কারণ কখন কোন কারণে ডাটা হারিয়ে যায় বা মুছে যায় তার কোনো ঠিক ঠিকানা নেই। পেনড্রাইভে ডাটা ব্যাকআপ রাখলে পেনড্রাইভ নস্ট হয়ে গেলে বা হারিয়ে গেলে সেটার সাথে সাথে ডাটাগুলোও হারিয়ে যাবে। কম্পিউটারে ব্যাকআপ রাখলে কোনো কারণে হার্ডডিক্স নস্ট হয়ে গেলে সেখানে ডাটাগুলোকে আপনি একই সাথে হারিয়ে ফেলবেন। কিন্তু আপনি যদি ওয়েবে বা ক্লাউডে ফাইলগুলো ব্যাকআপ করে থাকেন তাহলে এখান থেকে ডাটা হারিয়ে যাবার কোনো চান্স থাকে না। তাই বর্তমানে অনেকেই ক্লাউড ব্যাকআপের দিকে আগ্রহী হচ্ছেন। আর বর্তমানে কম্পিউটারের পাশাপাশি অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসগুলোতেও আমরা এই অটোমেটিক ক্লাউড ব্যাকআপের ফিচারটি উপভোগ করতে পারি। আজকের টিউনে আমি এমনই ৩টি অ্যাপের কথা আপনাদের সামনে বলতে এসেছি যেগুলো ব্যবহার করে আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনটিকে অটোমেটিক ডাটা ব্যাকআপের আওতায় নিয়ে আসতে পারবেন। আপনার সুবিধেমতো এবং কাজের দরকার অনুযায়ী সঠিক অ্যাপটিকে বেছে নিতে পারেন। তো চলুন ভূমিকায় আর কথা না বাড়িয়ে সরাসরি অ্যাপগুলোর বিবরণে চলে যাই:

১) Autosync

http://www.techtunes.com.bd/

লিস্টের শুরুতে একটি সহজে ব্যবহারযোগ্য অ্যাপ দিয়ে শুরু করছি। কম্পিউটারে যারা ড্রপবক্স ব্যবহার করেন তাদের যদি এখন আমি বলি যে আপনাদের অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে যদি ড্রপবক্সের মোবাইল সংষ্করণের মতো কোনো সার্ভিস বা অ্যাপ ব্যবহার করতে চান তাহলে ব্যবহার করতে পারেন Dropsync অ্যাপটিকে। এটা আপনাকে ডেক্সটপের ড্রপবক্সের মতোই সার্ভিস দিবে। আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে এই অ্যাপটি ব্যাকগ্রাউন্ডে চলবে এবং নিরবে আপনার সকল গুরুত্বপূর্ণ ডাটাগুলোকে তাদের সার্ভারে চলমান ভাবে আপলোড করে ব্যাকআপ করে রাখবে, মানে ডেক্সটপে ড্রপবক্স আপনাকে যেরকম সার্ভিস দিবে সেটাই আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনেই পেয়ে যাবেন।

ব্যাকগ্রাউন্ডে অটোমেটিক্যালি ফাইলগুলোকে ব্যাকআপ করা ছাড়াও Dropsync টিতে রয়েছে আরো বেশ কয়েকটি কাস্টমাইজেবল অপশন। যেমন আপনি দুটি ফোল্ডারকে একে অপরের mirror হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন, কোনো কিছু ডাউনলোড না করেই আপনার ফোন থেকে ড্রপবক্সে ফাইল আপলোড করতে পারবেন। এছাড়াও ডাটা sync করার কাস্টম অপশনও আপনি পাবেন এই অ্যাপে।

অ্যাপটির কোর বা মূল ফাংশনগুলো একদম ফ্রিতেই আপনি ইউজ করতে পারবেন। তবে বিজ্ঞাপণ এবং মাল্টিপল ফোল্ডার বা সম্পূর্ণ ফোনের ব্যাকআপ নেওয়ার জন্য বা বড় সাইজের ফাইল ব্যাকআপ করার জন্য আপনাকে অ্যাপটির প্রো সংস্করণটি কিনতে হবে। ড্রপবক্স ছাড়াও গুগল ড্রাইভ এবং Box Cloud স্টোরেজেও জন্যেও এটার আলাদা অ্যাপ রয়েছে।

ডাউনলোড করতে:

  • Autosync Dropbox ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।
  • Autosync Google Drive ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।
  • Autosync Box Cloud Storage ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

২) FolderSync

আপনি যদি ড্রপবক্স, গুগল ড্রাইভ বা Box সার্ভিসকে পছন্দ না করেন তাহলে আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের ডাটা ব্যাকআপ করার জন্য ব্যবহার করতে পারেন FolderSync অ্যাপটি। অ্যাপটি ওই ৩টি সার্ভিস সহ আরো বেশ কিছু অনলাইন ক্লাউড ব্যাকআপ সার্ভিসকে সার্পোট করে। এদের মধ্যে রয়েছে Microsoft OneDrive, SugarSync, Copy.net, Amazon Cloud Drive সহ আরো অনেক সার্ভিস। কিন্তু প্রাইভেসি?

http://www.techtunes.com.bd/

প্রাইভেসির ব্যাপারে আমাদেরকে এই সব ক্লাউড সার্ভিসগুলো ব্যবহারের আগে অবশ্যই সর্তক হতে হবে। বড় কোনো জনপ্রিয় সার্ভিস ছাড়া এই ক্লাউড ব্যাকআপ সার্ভিসগুলো ব্যবহার করা উচিত নয়। অন্যদিকে আপনার রাউটারটি যদি সঠিক প্রযুক্তি সার্পোট করে থাকে তাহলে FolderSync অ্যাপটি আপনার রাউটারে FTP বা Windows Share (Samba/CIFS) পদ্ধতিতে ডাটা Syncing করবে। আমাদের লিস্টের প্রথম সফটওয়্যারটির মতোই এটাতেও রয়েছে কাস্টমাইজেশনের বিভিন্ন অপশন। মানে হচ্ছে FolderSync অ্যাপের আপনি পাবেন দিনের কখন Sync করা হবে সেটা নির্ধারণ করার সুযোগ, থাকবে শুধুমাত্র ওয়াইফাইতে সিঙ্ক করবেন নাকি মোবাইল ডাটাতেও করবেন সেটা পছন্দ করার সুযোগ, কিভাবে আপনি আপনার ফাইলকে ক্লাউকে সেভ করতে চান সেটাও পছন্দ করার সুযোগ। এছাড়াও FolderSync অ্যাপে আপনি পাবেন একটি চমৎকার বিল্ট-ইন ফাইল ম্যানেজার। মানে একের ভিতর অনেক ধাঁচের কাজ আপনি এই অ্যাপটির মাধ্যমে করতে পারবেন।

  • অ্যাপটি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

৩) Resilo Sync

http://www.techtunes.com.bd/

এই অ্যাপটি উপরের দুটি অ্যাপের থেকে আলাদা। আপনার যদি অনলাইন ক্লাউড ডাটা ব্যাকআপের “প্রাইভেসি” নিয়ে বেশিই  চিন্তা থাকে তাহলে আপনি নিজেই নিজের একটি ক্লাউড ব্যাকআপ সিস্টেম খুলে নিতে পারেন, এ ব্যাপারে অন্য একদিন আরেকটি টিউনে কথা বলবো।  Resilo Sync হচ্ছে এমন একটি অ্যাপ যেটি আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের সকল ডাটাকে ব্যাকগ্রাউন্ডে ব্যাকআপ করতে পারবে, তবে এটি কিন্তু কোনো অনলাইন ক্লাউড সার্ভারে আপনার ডাটাগুলোকে ব্যাকআপ করবে না; এটা সরাসরি আপনারই অন্যকোনো ডিভাইসে ডাটাগুলোকে ব্যাকআপ করে রাখবে।

যেমন আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের গুরুত্বপূর্ণ ডাটাগুলোকে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত এই অ্যাপটির সাহায্যে আপনারই ডেক্সটপ / ম্যাক / NAS এমন কি আপনার নিজস্ব সার্ভারে ব্যাকগ্রাউন্ডে অটোমেটিক্যালি ব্যাকআপ করে রাখতে পারবেন। আর এই Sync করার সময় আপনার ডাটাগুলোকে এনক্রিপ্ট করে নেওয়া হয় এর মাধ্যমে ডাটার প্রাইভেসি নিয়ে আপনাকে আলাদা ভাবে কোনো চিন্তা করতে হবে না। অ্যাপটিতে ডাটা টান্সফারের কোনো লিমিট নেই, যেকোনো সাইজের যতখুশি কতগুলো ফোল্ডার আপনি এই অ্যাপটির মাধ্যমে আপনার অন্য কোনো ডিভাইসে ব্যাকআপ করে রাখতে পারবেন। এই অ্যাপটি ফাইল টান্সফারের জন্য BitTorrent peer-to-peer (p2p) ফিচারকে ব্যবহার করে থাকে, এখানে তাদের বা অন্য কোনো থার্ড পার্টি ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করা হয় না। মনে হচ্ছে এটি হলো একটি personal file syncing সফটওয়্যার। অ্যান্ড্রয়েড ছাড়াও এটাকে আপনি উইন্ডোজ, ম্যাক এবং NAS সিস্টেমে ব্যবহার করতে পারবেন।

  • Resilio Sync অ্যাপটি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

পরিশিষ্ট:

এই ছিলো অটোমেটিক ভাবে অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে ডাটা ব্যাকআপ করার তিনটি সেরা অ্যাপ। এখানে আপনি বলতে পারেন যে উন্নত এবং বেশ বাজেটওয়ালা স্মার্টফোনগুলেতে আগে থেকেই কোম্পানিগুলো নিজস্ব অনলাইন ব্যাকআপ সিস্টেম দিয়ে রাখে। তবে আজকের টিউনটি বাজেটওয়ালা অ্যান্ড্রয়েড সেটগুলো ছাড়াও সার্বজনীন সকল অ্যান্ড্রয়েড সেটের জন্য ব্যবহার করার জন্যই করা। এছাড়াও গুগল ড্রাইভটি তো আমাদের শেষ ভরসা হিসেবে রয়েছেই! আজকের টিউনটি কেমন লাগলো? ভালো লাগলে উপরের জোস বাটনে হালকা করে ক্লিক করে ফেলুন এবং টিউনটি সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন বা মতামত থাকলে নিজের টিউমেন্ট বক্সে চট করে ফেলতে পারেন। আজ এ পর্যন্তই। আগামীতে অন্য কোনো টপিক নিয়ে আমি চলে আসবো আপনাদেই প্রিয় বাংলা টেকনোলজি সোশাল প্লাটফর্ম টেকটিউনসে। আল্লাহ হাফেজ।

আমার টিউন গুলো ভালো লাগলে অবশ্যই আমার টিউন বেশি বেশি জোসস করুন

আমার টিউন গুলো আপনার ‘টিউন স্ক্রিন’ নিয়মিত পেতে অবশ্যই আমাকে ফলো করুন। আমার টিউন গুলো সবার কাছে ছড়িতে দিতে অবশ্যই আমার টিউন গুলো বিভিন্ন সৌশল মিডিয়াতে বেশি বেশি শেয়ার করুন

আমার টিউন সম্পর্কে আপনার যে কোন মতামত, পরামর্শ ও আলোচনা করতে অবশ্যই আমার টিউনে টিউমেন্ট করুন

আমার সাথে সরাসরি যোগাযোগ করার জন্য ‘টেকটিউনস ম্যাসেঞ্জারে’ আমাকে ম্যাসেজ করুন। আমার সকল টিউন পেতে ভিজিট করুন আমার ‘টিউনার পেইজ’


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *