দেশে পর্যাপ্ত আছে তবুও আসছে ভারতীয় গরু…-669259 | কালের কণ্ঠ


রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের বড় বড় গরুর বিট-খাটালগুলো খুলে দেওয়ার কারণে ভারতীয় গরু আসছে ব্যাপক হারে। ফলে এবার কোরবানির ঈদে গরুর পর্যাপ্ত জোগান থাকবে বলেই মনে করছে ব্যবসায়ীরা। তবে এবারও অন্যবারের তুলনায় দেশি জাতের গরু-মহিষের চাহিদা বেশি রয়েছে।

রাজশাহী শহরের সিটি বাইপাস হাটের ইজারাদার ডাবলু কালের কণ্ঠকে জানান, সপ্তাহে রবি ও বুধবার এই হাটটি সাধারণত বসে। তবে এখন কোরবানি ঈদ উপলক্ষে প্রতিদিনই হাট বসছে। গত কয়েক দিনে হাটে বেচাকেনাও বেড়েছে। হাটের দিন গড়ে ৩০-৪০ হাজার পশু আসছে এই হাটে। অন্যান্য দিনও আসছে ১৫-২০ হাজার করে পশু। হাটের আরেক ইজারাদার আতিকুল ইসলাম কালু বলেন, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার হাটে প্রচুর পরিমাণে দেশি গরু-মহিষ আসছে।

এই হাটে গরু বিক্রি করতে আসা রাজশাহীর পবা উপজেলার বড়গাছী গ্রামের মহিদুল ইসলাম জানান, তাঁর খামারে এবার ১৫টি গরু পালন করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি গরু রয়েছে বিদেশি জাতের। এসব গরু পালন করতে বছরজুড়ে তাঁকে অনেক শ্রম দিতে হয়েছে। তবে ভারতীয় গরু আসায় দেশি গরুর দাম কমে যেতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

সিটি বাইপাস পশুর হাট ঘুরে দেখা গেছে, ভারতীয় সিন্ধু, অন্ধ্র প্রদেশ এবং নেপাল থেকেও গরু এসেছে। দেশি জাতের গরুর তুলনায় এ জাতের গরুগুলোর দাম কিছুটা হলেও কম।

গরু ব্যবসায়ী সাগর জানান, হাটে ভারতীয় ২০টি আন্ধা জাতের গরু নিয়ে এসেছেন তিনি। প্রতিটির দাম দুই লাখ ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা চাচ্ছেন। এসব গরুর মাংস ৯ থেকে ১০ মণ হবে। হাটে তুলনামূলক গরুর ক্রেতা কম। তবে কয়েক দিনের মধ্যে ক্রেতা আরো বাড়বে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

রাজশাহীর বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ দপ্তরের সহকারী পরিচালক ডাক্তার হুমায়ন কবীর জানান, এবার রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় খামারি পর্যায়ে প্রায় ১৮ লাখ গরু, মহিষ, ভেড়া ও ছাগল পালন করা হয়েছে। গতবার এই সংখ্যা ছিল ২০ লাখের ওপরে। তবে এবারও যা পালন হয়েছে, তা এই অঞ্চলের চাহিদার জন্য পর্যাপ্ত। কিন্তু রাজশাহী অঞ্চলের পশুর চাহিদা রয়েছে সারা দেশব্যাপী। ফলে সারা দেশের বাজারেই যাচ্ছে এ অঞ্চলের পশু।

তিনি আরো জানান, এবার রাজশাহী বিভাগে কোরবানির জন্য ষাঁড় পালন করা হয়েছে চার লাখ ৩৫ হাজার ৮৪৭টি, বলদ ৮৮ হাজার ৮৫১টি, গাভি এক লাখ ৩১ হাজার ৪৪টি। এ ছাড়া মহিষ পালন হয়েছে ১৩ হাজার ৭৯টি। ছাগল পালন হয়েছে আট লাখ ৯৮ হাজার ৬৭টি এবং ভেড়া পালন হয়েছে এক লাখ ২৮ হাজার ২০৩টি।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *