নির্বাচনে বিএনপিকে জনগণ চুড়ান্তভাবে পরাজিত করবে


আগামী জাতীয় নির্বাচনে জনগণ বিএনপিকে চুড়ান্তভাবে পরাজিত করবে বলে মনে করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। এই নির্বাচনে সন্ত্রাস লালনকারি দল বিএনপি বিলিন হয়ে যাবে বলে ১৪ দল নেতারা মন্তব্য করেন। আজ শুক্রবার ১৪ দলের সভা শেষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জোটের নেতারা এ মন্তব্য করেন।

বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী  লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন ১৪ দলের মুখপাত্র আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলির সদস্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। এ সভায় ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়কে স্বাগত জানিয়ে আদালতকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

সভায় মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আমরা ১৪ দল আদালতকে ধন্যবাদ জানাই। আদালত যে পর্যবেক্ষণ দিয়েছে তাতে উঠে এসেছে জাতিকে নেতৃত্ব শুন্য করার জন্য এই গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিলো। আদালতের এ পর্যবেক্ষণের সঙ্গে সমগ্র জাতি এক মত পোষণ করে। বিএনপি একটি সন্ত্রাস লালনকারি রাজনৈতিক দল এটা আজ স্বীকৃত, প্রমাণ হয়েছে। আগামী নির্বাচনে এই সন্ত্রাস লালনকারি দলের অস্থিত্ব বিলিন হয়ে যাবে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রেনেড হামলার পর বিএনপি আরও তিন বছর ক্ষমতায় ছিলো। তারা এই ঘটনার বিচার করেনি, তদন্ত করেনি। এদেশের জনগণ চেয়েছিলো এই বর্বর হত্যাকাণ্ডের বিচার। সেই বিচার হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাহসিকতার সঙ্গে এই বিচারের ব্যবস্থা করেছেন, সে জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও ১৪ দলের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘বিএনপি একটি সন্ত্রাস নির্ভর, জঙ্গি সংশ্লিষ্ট দল সেটা প্রমাণ হয়েছে। এ ঘটনাকে সংগঠিত করতে গিয়ে বিএনপি রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করেছে, এটি একটি অসানি সংকেত। রাজনীতিতে এই ধারাকে পরাজিত করতে না পারলে রাজনীতি নিসকন্টক হবে না। এই বিএনপির সঙ্গে কারো ঐক্য হলে সেটা হবে জঙ্গি ও দুনীতিবাজদের ঐক্য। আগামী নির্বাচনে জনগণ এই বিএনপিকে চুড়ান্তভাবে পরাজিত করবে।’

জাসদের সভাপতি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় প্রত্যাখান করার মধ্য দিয়ে বিএনপি প্রমাণ করেছে তারা দল হিসেবে বদলায়নি। এই রায়ের মধ্য দিয়ে সত্য বেরিয়ে এসেছে, বিএনপির স্বরূপ উন্মোচন হয়েছে। জামায়াত যুদ্ধাপরাধীদের দল আর বিএনপি খুনীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়কারী দল। সকল রাজনৈতিক দলকে এই বিএনপির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। যারা জাতীয় ঐক্যের নামে বিএনপির সঙ্গে জোট করছে তারা জাতির সঙ্গে বেঈমানি করছে।’

১৪ দলের এ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ জাসদের সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া, সাম্যবাদি দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ূয়া, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের সভাপতি ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরীসহ ১৪ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *