বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়াই এখন আমাদের দায়িত্ব: প্রধান বিচারপতি


রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানবিচারপতি

ছবি: সংগৃহীত

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন, আমাদের দায়িত্ব হবে সে লক্ষ্যে কাজ করে তা পূরণ করা৷ তাহলেই তার বিদেহী আত্মা শান্তি পাবে।

বুধবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সুপ্রিম কোর্ট আয়োজিত স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আপিল বিভাগের বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার।

প্রধান বিচারপতি বলেন, আজ ইতিহাসের বেদনাবিধুর ও বিভীষিকাময় একটি দিন। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ৷ ১৯৭৫ সালের এদিনে পরিবার-পরিজনসহ নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি। এটা ছিল স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে অশ্রুভেজা ও কলঙ্কময় রাত।

তিনি বলেন, বাঙালি জাতি আজ গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় তার শ্রেষ্ঠ সন্তানকে স্মরণ করছে। রাষ্ট্রীয়ভাবে যথাযোগ্যে মর্যাদা ও ভাব-গাম্ভীর্যে পালিত হচ্ছে জাতীয় শোক দিবস। জাতির পিতাসহ তার পরিবারবর্গ যারা আজকের এই দিনে শহীদ হয়েছিলেন তাদের প্রতি রইল বিনম্র শ্রদ্ধা।

সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, জাতির পিতার শাহাদাত বার্ষিকীতে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের বিচারপতি, আইনজীবী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণে কোরআন খতম, মোনাজাত ও স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে৷

পবিত্র কোরআন খতম ও মোনাজাতে অংশগ্রহণকারীদের বিশেষ ধন্যবাদ জানিয়ে দিনব্যাপী স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধান বিচারপতি।

এ আয়োজনে সহযোগিতার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের টান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের কর্মকর্তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান তিনি।

রক্ত দিলেন হাইকোর্টের তিন বিচারপতি: জাতীয় শোক দিবসে হাইকোর্টের তিন বিচারপতির রক্তদানের মধ্যে দিয়ে রক্তদান কর্মসূচি শুরু হয়।

বুধবার বেলা ১১ টার দিকে সুপ্রিম কোর্ট অডিটরিয়ামে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

এর আগে সকাল পৌনে সাতটায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধান বিচারপতি। তিনি রক্তদাতাদেরকে নিজ হাতে জুস পান করান।

প্রথমেই রক্তদান করেন হাইকোর্টের বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান, বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামান ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলম।

এছাড়া হাইকোর্ট বিভাগের ডেপুটি রেজিস্ট্রার (বিচার ও প্রশাসন) মো. আক্তারুজ্জামান ভূঁইয়াসহ সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনের শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রক্তদান করেন।

এসময় সপ্রিম কোর্টের রেজিষ্ট্রার জেনারেল ড. জাকির হোসেন ও সুপ্রিম কোর্টের স্পেশাল অফিসার ব্যারিস্টার মো. সাইফুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *