Warning: mysqli_query(): (HY000/1): Can't create/write to file '/tmp/#sql_13d0_0.MYI' (Errcode: 28 - No space left on device) in /home/bdtechma/public_html/wp-includes/wp-db.php on line 1924
ভারতীয় গরু চোরাচালানের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা মেহেরপুরের খামারিদের – BD Tech Master

ভারতীয় গরু চোরাচালানের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা মেহেরপুরের খামারিদের


কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে গরু মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত সময় পার করছেন মেহেরপুরের খামারিরা। স্টেরয়েড ও হরমোন জাতীয় ওষুধ ব্যবহার করে কৃত্রিম উপায়ে গরু মোটাতাজাকরণের বদলে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিকভাবে গরু মোটাতাজা করছেন তারা। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত তারা ব্যস্ত থাকেন গরুর পরিচর্যায়। তবে চোরাচালানের মাধ্যমে ভারতীয় গরু আসার সম্ভাবনায় আশঙ্কাগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন এসব খামারিরা।  জেলা পশুসম্পদ অফিস জানিয়েছে, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে জেলার ৬৪৫টি বাণিজ্যিক খামারসহ ২০ হাজার পারিবারিক খামারে প্রস্তুত করা হয়েছে ৩৯ হাজার গরু।মেহেরপুরে গরুর খামারি

ধানের বিচালী, কাঁচা ঘাস, খৈল, গমের ভুষি, ছোলা, ভাত, চালের কুঁড়া ইত্যাদি খাইয়ে গরু মোটাতাজা করেছেন খামারিরা। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন জাতের গরু মোটাতাজা করেছেন তারা। মেহেরপুরের বিভিন্ন খামারের ১ থেকে ১২ লাখ টাকা পর্যন্ত দামের গরু বাজারে এসেছে। গরু বিক্রি করে অর্ধশত কোটি টাকা আয়ের আশা করছেন গরুর খামারিরা। তারা জানিয়েছেন, বর্তমানে যে বাজার দর আছে তাতে খামারিরা লাভবান হতে পারবেন। তবে ভারত থেকে গরু আসলে খামারিদের লোকসান গুনতে হবে। এতে করে আগামীতে গরু মোটাতাজাকরণে আগ্রহ হারাবেন সংশ্লিষ্টরা।

বুধবার সকালে যোগাযোগ করা হলে মিরপুর বিজিবি ব্যাটেলিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর আনম নজরুল ইসলাম এই সংবাদদাতাকে বলেন, সীমান্তে গরুসহ সকল প্রকার চোরাচালানের বিষয়ে বিজিবি জিরো টলারেন্স নীতিতে অটল। গরু খামারিদের দুশ্চিন্তার কোন কারণ নেই । গাংনী উপজেলায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের কাথুলি বিওপির কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার নুরুল ইসলাম জানান, সীমান্ত চোরাচালানশূন্য। এমনকি ভারতীয় বিএসএফের কাছে আমাদের একটা চিঠি নিয়ে যাওয়ার লোকও অনেক সময় পাওয়া যায় না ।

জেলার প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, ‘ঈদকে সামনে রেখে কোনোক্রমেই যাতে মেহেরপুরের সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু আসতে না পারে তা নিশ্চিত করতে সব ধরণের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও স্টেরয়েড ও হরমোন ব্যবহার করে গরু মোটাতাজাকরণ না করতে খামারিদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *