স্মার্ট স্টিকার কি? জানতে হলে পোষ্টি পড়েন…


আসসালামু আলাইকুম।

মুল কাথাই আশিঃ-

স্মার্ট মোবাইল, স্মার্ট স্পিকার, স্মার্ট ঘড়ি, স্মার্ট বাড়ি, স্মার্ট ফ্রিজের পর এবার স্মার্ট স্টিকারও আবিস্কার হয়েছে। সহজে পরিধানযোগ্য ইলেকট্রনিক যন্ত্র হিসেবে স্মার্ট স্টিকার তৈরি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা। এ যন্ত্র বা স্টিকার এমনভাবে ত্বকের সঙ্গে লেগে থাকে, যা শরীরের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করে নিমেষে সম্ভাব্য রোগের ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করতে পারবে। এই স্মার্ট স্টিকার তৈরি হয়েছে সেলুলোজ থেকে, যা পরিবেশবান্ব ও আরামদায়ক। গবেষণাসংক্রান্ত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ‘অ্যাডভান্সড ম্যাটারিয়ালস অ্যান্ড ইন্টারফেসেস’ সাময়িকীতে। স্মার্ট স্টিকার তৈরিতে কাজ করেছেন পার্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক র্যামসেস মার্টিনেজ। তিনি বলেন, ‘প্রথমবারের মতো আমরা পরিধানযোগ্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস তৈরি করতে পেরেছি, যা সহজে ত্বকে লাগানো যায় এবং এমন কাগজ দিয়ে তৈরি যার দাম কম। এসব স্টিকার চিকিত্সকেরা সেন্সর হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন এবং রোগীর ঘুমের তথ্য সংগ্রহ করতে পারবেন। এতে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই অভ্যন্তরীণ অঙ্গের তথ্য পাওয়া যাবে। গবেষকেরা বলছেন, এই স্টিকার চিকিত্সকেরা ছাড়াও অ্যাথলেটরাও কাজে লাগাতে পারবেন। যারা ব্যায়াম ও সাঁতার কাটেন, তাদের শারীরিক তথ্য এ স্টিকারের মাধ্যমে জানতে পারবেন।

সহজে পরিধানযোগ্য ইলেকট্রনিক যন্ত্র হিসেবে স্মার্ট স্টিকার তৈরি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা। এ যন্ত্র বা স্টিকার এমনভাবে ত্বকের সঙ্গে লেগে থাকে, যা শরীরের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করে নিমেষে সম্ভাব্য রোগের ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করতে পারবে। এই স্মার্ট স্টিকার তৈরি হয়েছে সেলুলোজ থেকে, যা পরিবেশবান্ধব ও আরামদায়ক।

গবেষণা–সংক্রান্ত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ‘অ্যাডভান্সড ম্যাটারিয়ালস অ্যান্ড ইন্টারফেসেস’ সাময়িকীতে।

স্মার্ট স্টিকার তৈরিতে কাজ করেছেন পার্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক র‍্যামসেস মার্টিনেজ। তিনি বলেন, ‘প্রথমবারের মতো আমরা পরিধানযোগ্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস তৈরি করতে পেরেছি, যা সহজে ত্বকে লাগানো যায় এবং এমন কাগজ দিয়ে তৈরি যার দাম কম। এসব স্টিকার চিকিৎসকেরা সেন্সর হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন এবং রোগীর ঘুমের তথ্য সংগ্রহ করতে পারবেন। এতে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই অভ্যন্তরীণ অঙ্গের তথ্য পাওয়া যাবে।

গবেষকেরা বলছেন, এই স্টিকার চিকিৎসকেরা ছাড়াও অ্যাথলেটরাও কাজে লাগাতে পারবেন। যাঁরা ব্যায়াম ও সাঁতার কাটেন, তাঁদের শারীরিক তথ্য এ স্টিকারের মাধ্যমে জানতে পারবেন।

গবেষকেরা বলছেন, যেহেতু ঘাম বা পানিতে ভিজে কাগজ দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়, তাই স্টিকারে তাঁরা এমন উপাদান যুক্ত করেছেন তাতে পানি, তেল, ধুলা বা ব্যাকটেরিয়ার সংস্পর্শে ক্ষতি হবে না। এ স্টিকার প্রচলিত প্রিন্টিং ও উৎপাদন–প্রক্রিয়ার মতো সহজেই তৈরি করা যাবে।

গবেষক মার্টিনেজ বলছেন, কম খরচে এ ধরনের পরিধানযোগ্য যন্ত্র তৈরির সুবিধার ফলে দ্রুত এটি গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠতে পারে। এ ধরনের যন্ত্র স্বাস্থ্যগত নানা কাজে লাগানো যাবে। এটি একবার গ্রহণযোগ্য যন্ত্র হবে।

এরকম আরো নিত্য নতুন tips পেতে আমাদের tipsnow24.com এই সাইট টি ভিজিট করুন।

পোষ্টি ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট করতে ভুলবেন না। ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। ধন্যবাদ।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *